মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৩০ ডিসেম্বর ২০১৯

শিক্ষাবৃত্তি(কল্যাণ) কার্যক্রম

সেবাপ্রার্থীর ক্যাটাগরি :

সরকারি ও তালিকাভুক্ত স্বায়ত্বশাসিত সংস্থার সকল গ্রেডের অক্ষম, অবসরপ্রাপ্ত ও মৃত কর্মকর্তা কর্মচারীর অনধিক দু’সন্তানকে নবম শ্রেণি থেকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে অধ্যয়নের জন্য শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করা হয়

 

সেবার মৌলিক তথ্যাবলী :

বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ড, ঢাকা

২টি কমিটি কর্তৃক পরীক্ষা নিরীক্ষা করে চূড়ান্ত অনুমোদন প্রদান করা হয়। কমিটি ২টি নিম্নরুপ:

১. বাছাই কমিটির সভার সুপারিশ

২. উপকমিটির সভায় চূড়ান্ত অনুমোদন

বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ড, প্রধান কার্যালয়, ঢাকাসহ ৮টি বিভাগীয় কার্যালয়

আবেদন জমা: জানুয়ারী-ফেব্রুয়ারি

বাছাই ও অনুমোদন প্রক্রিয়া: ১ মার্চ - ২০ জুন

 

সেবা প্রদানের সংক্ষিপ্ত বিবরণ

 

 

 

১. সকল গ্রেডের অক্ষম, অবসরপ্রাপ্ত ও মৃত কর্মচারীর ৯ম শ্রেণি থেকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে অধ্যায়নরত সন্তানদের শিক্ষাবৃত্তির জন্য বোর্ডের ওয়েবসাইটে বিজ্ঞপ্তি প্রচার করে অনলাইনে দরখাস্ত আহবান করা হয়;

২. অনলাইনে প্রাপ্ত শিক্ষাবৃত্তির আবেদনসমূহ প্রাথমিক যাচাই-বাছাই করা হয়;

৩. প্রধান কার্যালয় ও বিভাগীয় কার্যালয়ে অনলাইন সফটওয়্যার হতে প্রাপ্ত আবেদনসমূহের শ্রেণিভিত্তিক তালিকা বোর্ডের বাছাই কমিটির সভায় পেশ করা হয়;

৪. উপ কমিটির সভায় যোগ্য ছাত্র/ছাত্রীর অনুকূলে নির্ধারিত হার অনুযায়ী শিক্ষাবৃত্তির চূড়ান্ত অর্থ মঞ্জুরি প্রদান করা হয়;

৫. শিক্ষাবৃত্তির জন্য মঞ্জুরিকৃত অর্থ EFT এর মাধ্যমে আবেদনকারীর ব্যাংক হিসাবে প্রেরণ করে আবেদনকারীর মোবাইল ফোনে ক্ষুদেবার্তার মাধ্যমে মঞ্জুরিকৃত অর্থের পরিমাণ জানিয়ে দেয়া হয়;

৬. এ সংক্রান্ত সকল তথ্য বোর্ডের ওয়েবসাইট (www.bkkb.gov.bd) থেকে জানা যায়।

শিক্ষাবৃত্তির হার নিম্নরূপ :

  • ৯ম ও ১০ম শ্রেণি বা সমমানের জন্য প্রতি মাসে ২০০/- টাকা
  • একাদশ ও দ্বাদশ বা সমমানের শ্রেণির জন্য প্রতি মাসে ৩০০/- টাকা
  • স্মাতক বা সমমানের জন্য প্রতি মাসে ৪০০/- টাকা
  • স্মাতকোত্তর বা সমমানের জন্য প্রতি মাসে ৫০০/- টাকা

সেবা প্রাপ্তির শর্তাবলি

 

 

 

১. সরকারি ও তালিকাভুক্ত স্বায়ত্বশাসিত সংস্থার সকল গ্রেডের অক্ষম, অবসরপ্রাপ্ত ও মৃত কর্মচারীর অনধিক দু’সন্তানকে নবম শ্রেণি থেকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে অধ্যয়নের জন্য শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করা হয়;

২. বছরে একবার শিক্ষাবৃত্তি দেয়া হয়;

৩. কর্মকর্তা কর্মচারীগণের যে সকল সন্তান পূর্ববর্তী পরীক্ষায় ন্যূনতম গ্রেড পয়েন্ট বি পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে, তারা শিক্ষাবৃত্তি লাভের যোগ্য হবে;

৩. কর্মকর্তা কর্মচারীর বয়স ৬৯ বছর পর্যন্ত এ সাহায্য প্রদান করা হয়;

৪. স্বামী/স্ত্রী উভয়ই সরকারি চাকরিতে নিযুক্ত হলে, কেবল একজনই সন্তানদের শিক্ষাবৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন;

৫. অনলাইনে পুরনকৃত শিক্ষাবৃত্তির আবেদন ফরমের মুদ্রিত কপির নির্ধারিত স্থানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানের স্বাক্ষর ও সীল, কর্মচারীর স্বাক্ষর, কর্তৃপক্ষের স্বাক্ষর ও সীল এবং স্মারক নং ও তারিখ দিয়ে ফরমের স্ক্যান কপি এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের স্ক্যান কপি সংযুক্ত করে চূড়ান্তভাবে দাখিল করতে হয়।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

১. ছাত্র-ছাত্রী বিগত বছরে যে পরীক্ষায় পাস করেছে তার মূল মার্কশীটের সত্যায়িত কপি স্ক্যান করে আপলোড করতে হয়;

২. কর্মচারী অবসরপ্রাপ্ত হলে অবসরে যাওয়ার আদেশ বা মৃত হলে মৃত্যুর সনদের সত্যায়িত কপি স্ক্যান করে আপলোড করতে হয়;

৩. আবেদনকারীর ছবি স্ক্যান করে আপলোড করতে হয়।

প্রয়োজনীয় ফি

এজন্য কোন ফি প্রয়োজন হয় না

সংশ্লিষ্ট আইন

বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ড আইন, ২০০৪ এবং বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ড (তহবিলসমূহ পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণ) বিধিমালা ২০০৬ অনুযায়ী

নির্দিষ্ট সেবা পেতে ব্যর্থ হলে পরবর্তী প্রতিকারকারী কর্মকর্তা

প্রধান কার্যালয়ে - পরিচালক(প্রশাসন)/মহাপরিচালক

বিভাগীয় কার্যালয়ে - পরিচালক/উপপিরচালক

সেবা প্রদান/ প্রাপ্তির ক্ষেত্রে অসুবিধা সমূহ

ক) নাগরিক পর্যায়

কল্যাণ বোর্ডের সকল সেবা সম্পর্কে সেবাপ্রার্থীগণ পুরোপুরি অবহিত নন

খ) সরকারি পর্যায়

১.    চাহিদার তুলনায় বাজেট অপ্রতুল;

২.   আইসিটিতে দক্ষ জনবলের অভাব

৩.  স্বায়ত্বশাসিত সংস্থার আবেদনের সঠিকতা যাচাই করার Employee Database  না থাকায় যাচাই-এ সমস্যা।


Share with :

Facebook Facebook